কিভাবে গুগোল এডসেন্স Approve করবেন - How To Approve Adsense On 2020


যারা নতুন ব্লগ তৈরি করে এবং নিজের কনটেন্ট লিখে কিছু ইনকাম করতে চান তখনই তাদের একটাই কথা মাথায় আসে যে এই ওয়েবসাইটে কিভাবে গুগোল এডসেন্স Approve করবেন

যখনই নতুন ওয়েবসাইট তৈরি করে Google Adsense জন্য Request পাঠায় তখনই তাদের রিকোয়েস্ট রিজেক্ট করে দেওয়া হয়। এক্ষেত্রে নতুন যারা beginner's তাদের মন ভেঙ্গে যায় এবং তারা ব্লগিং ছেড়ে চলে যায়।

আজকের দিনে গুগল এডসেন্স থেকে পাওয়া একটু কষ্টকর।আমি যখন প্রথমবার ওয়েবসাইট তৈরি করি তখন গুগল এডসেন্স আমার নিজস্ব ওয়েবসাইটে এগার বার রিজেক্ট করেছিল কিন্তু তবুও আমি চেষ্টা ছাড়িনি এবং লাস্ট পর্যন্ত আমার ব্লগে গুগোল এডসেন্স Approve  দেওয়া হল। এরপর থেকেই আমি যখনই কোন ওয়েবসাইট বানাই তখন আর গুগল এডসেন্স নিয়ে অসুবিধে হয়না।

কিভাবে গুগোল এডসেন্স Approve করবেন

কিভাবে গুগোল এডসেন্স Approve করবেন


আজ আমি আপনাদের কিছু টিপস শেয়ার করব যেগুলিকে আপনি ফলো করলে আপনার ব্লগ অর্থাৎ ওয়েবসাইটে গুগোল এডসেন্স Approve  100% হবেই হবে। এর মধ্যে আমি আলোচনা করব যে আমি কি ভুল করেছিলাম যার জন্য গুগল এডসেন্স আমাকে একবার রিজেক্ট করেছে এবং আপনারাও যাতে এই ভুলগুলি না করেন তার জন্য পরামর্শ দেব।তাই সমস্ত Beginners  যারা নতুন ওয়েবসাইট আরম্ভ করছেন তাদেরকে রিকোয়েস্ট করছি যে আপনারা এই পোস্টটি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত মন দিয়ে পড়ুন ।


Copyright Content চলবে না


নতুন ব্লগার যখন Bloging ফিল্ডে আছে তখন তারা মনে করে যে অন্যের Content  কপি করে এডসেন্স Approve  নিয়ে নেবে। কিন্তু এমনটা নয়। গুগোল বুঝতে পারে যে কোন Content  কপি করা আর কোন কোনটি নিজস্ব লেখা। তাই ভুল করেও অন্যের কনটেন্ট কপি করে নিজের Blog অর্থাৎ ওয়েবসাইটে Publis করবেন না। এতে আপনার গুগল অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্ট অ্যাপ্রুভ হবে না।




মিনিমাম পোস্ট


ইউটিউব অনেক ধরনের Bideo আছে যেগুলো দেখা 7 থেকে 10 টা আর্টিকেল পোস্ট করলে অ্যাডসেন্স Approve  করে নিয়ে যায়। কিন্তু এটা অনেক ক্ষেত্রে ঠিক আবার অনেক ক্ষেত্রে ভুল। আপনাকে মিনিমাম 22 থেকে 25 টি পোষ্ট লিখতে হবে এবং প্রত্যেকটি পোষ্ট 500 থেকে 700 ওয়াটের হওয়া চাই।

নোংরা ছবি ডাউনলোড লিংক


পোষ্টের মধ্যে কোন নোংরা ছবি বা ভিডিও দেওয়া চলবে না। কোন ধরনের সিনেমা Download Link দেওয়া চলবে না। এ ধরনের লিঙ্ক দিলে গুগল এডসেন্স আপনাকে কোনদিনও অ্যাপ্রভাল দেবেনা।




Heading, Sub Heading


যে আর্টিকেলটি আপনি লিখবেন সেটি পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা বজায় রেখে লিখুন। প্রত্যেকটি পোস্টের
Heading, Sub Heading  ব্যবহার করুন।

রেসপনসিভ Theme  ব্যবহার করুন



এডসেন্স Approve  না পাওয়ার একটি অন্যতম কারণ হলো রেসপনসিভ থিম না হওয়ার।Theme  একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় এডসেন্স Approve  এর ক্ষেত্রে।যে ফোনটি আপনি ব্যবহার করবেন আপনার Blog সেটি যেন রেস্পন্সিভ হয় এবং মোবাইল ফ্রেন্ডলি হয়। আমি স্পেশাল ভাবে আপনাদের Recommend  করছি যে আপনারা Minima Colour Mag3 থিমটি ব্যবহার করুন। এই ছবিটি খুবই হেল্পফুল গুগল এডসেন্স Approve ক্ষেত্রে।

সার্চ কনসোলে ব্লগ সাবমিট করুন



আপনার ব্লগ Google Search console এ  সাবমিট করুন। এবং আপনার সাইট ম্যাপ সার্চ করে অ্যাড করে নিন। সার্চ কৌশল এর কাজ হলো আপনি কি কি পোস্ট আপনার ব্লগে পাবলিশ করছেন কবে করছেন সে সবগুলি গুগোল এর কাছে ইনডেক্স করানো।

গুরুত্বপূর্ণ পেজ গুলি তৈরি করুন



আপনার ব্লগে কিছু পেয়েছি হওয়া খুব জরুরি। যেমন about us, content,  disclaimer, privacy policy Trams and condition.এই পেজ গুলো যদি আপনার ব্লগে না থাকে তাহলে আমি 100% দিয়ে বলতে পারি যে আপনার ব্লগটি কোনদিনও গুগল এডসেন্স Approve নিতে পারবে না। তার এই পেজ গুলি অবশ্যই বানিয়ে নিন।




এবার বলি যে আমি কোন ভুলগুলি করেছিলাম যার জন্য গুগল এডসেন্স আমাকে 11 বার রিজেক্ট করেছে। আমি আমার ব্লগের সাইটম্যাপ টি গুগল সার্চ করতে ভুলে গিয়েছিলাম যার জন্য Google  Adsense আমাকে 11 বার রিজেক্ট করেছে।আপনি যদি একবার শোনো ভুল আপনার ব্লগে করে থাকেন তাহলেও Google Adsense  আপনাকে Approve  দেবে না তাই একটা কথা মাথায় রাখবেন যে আপনাকে নিখুঁত ভাবে কাজ করতে হবে।




আশা করছি আপনাদের বোঝাতে পেরেছি যে ব্লগে কিভাবে গুগোল এডসেন্স Approve করবেন। যদি বেশি আবার কোন তথ্য আপনাদের মনে থেকে থাকে তাহলে আমাকে Commend box  বক্সে অবশ্যই জানাবেন। আমি যথাসম্ভব চেষ্টা করব আপনার ব্লগের গুগল এডসেন্স Approve  না পাওয়ার কারণ খোঁজার জন্য।




পোস্টটি পড়ার জন্য আপনাকে অশেষ ধন্যবাদ।
Previous
Next Post »